Home অন্যান্য পৃষ্ঠা তানোরে কিশোরীকে গীর্জায় আটকে রেখে তিনদিন ধরে ধর্ষণ গ্রাম্য শালিসে আপোষ করে...

তানোরে কিশোরীকে গীর্জায় আটকে রেখে তিনদিন ধরে ধর্ষণ গ্রাম্য শালিসে আপোষ করে ফাদারকে ক্লোজ করা হয়েছে

42
0

তানোর প্রতিনিধি : তানোরে গীর্জায় ৭ম শ্রেনীর এক আদিবাসি ছাত্রীকে গীর্জায় আটকে রেখে তিনদিন ধরে ধর্ষণ করেছে গীর্জার ফাদার। ঘটনাটি ঘটেছে তানোর উপজেলার মুন্ডমালা মাহালী পাড়ার সাধু মেরি গীর্জায়।

আজ (২৯ সেপ্টেম্বর) মঙ্গলাবর সন্ধায় তানোর থানা ও মুন্ডমালা পুলিশ অভিযান চালিয়ে গীর্জা থেকে ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে থানায় নেয়া হয়েছে। এঘটনায় ওই আদিবাসী কিশোরীর বড় ভাই বাদি হয়ে গীর্জার ফাদারকে আসামী করে তানোর থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

এর আগে মঙ্গলবার দুপুরে রাজশাহী জেলা র্ধম প্রদেশের তিনজন প্রতিনিধি ও স্থানীয় গ্রামের দুইজন গ্রাম্য প্রধান এবং তানোর উপজেলার আদিবাসী পারগানা পরিষদের সভাপতি ও মুন্ডুমালা সরকারী উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামিল মার্ডি ওই গীর্জায় শালিস বৈঠক বসান।

শালিস বৈঠকে ওই কিশোরীসহ তার পরিবারের লোকজনকে ধর্মের দোহাই দিয়ে এবং লেখাপড়ারসহ ভরণ পোষন ও বিয়ে দেয়া পর্যন্ত সকল দায়িত্ব নেয়ার কথা বলে বিষয়টি আপোষ করে দেয়ার নামে ধামাচাপা দেন এবং অভিযুক্ত ধর্ষক গীর্জার ইনচার্জ ফাদার প্রদীপ গে গরীকে অভিযোগ থেকে মুক্তি দিয়ে ক্লোজ করে ধর্ম প্রদেশ রাজশাহীর গীর্জায় নেয়া হয়।

পরে মঙ্গলবার বিকালে ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরী ও তার পরিবারের লোকজন ঘটনাটি গ্রামবাসীর কাছে প্রকাশ করলে গ্রামবাসী পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে তানোর থানা পুলিশ ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে মেডিকলে পরীক্ষার জন্য থানায় নিয়ে আসেন। তবে, অভিযুক্ত ফাদারকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিম। অপর দিকে গ্রাম্য শালিসের নামে প্রহসন করে ধর্ষনের মত ঘটনা ধামা চাপা দেয়ার চেষ্টাকারীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

কিশোরীর ভাই বলেন, ২৬ সেপ্টেম্বর শনিবার সকালে বাড়ি থেকে বেরিয়ে মাঠে ঘাষ কাটতে গিয়ে তার বোন বাড়ি ফিরে আসেনি, বিভিন্ন স্থানে খুজাখুজির পর ২৭ সেপ্টেম্বর রোববার তানোর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। ২৮ সেপ্টেম্বর সোমবার বেলা ১১টার দিকে স্থানীয়রা ওই কিশোরীকে গীর্জার ফাদারের ভবনের ছাদে দেখতে পায়।

পরে ওই কিশোরীর পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করতে গেলে ফাদার বাধাদেন এসময় স্থানীয়রা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে রাজশাহীর জেলা র্ধম প্রদেশের ইনচার্জকে বিষয়টি অভিহিত করেন। পরে রাজশাহী ধর্ম প্রদেশের তিনজন প্রতিনিধিসহ গীর্জায় সালিস বৈঠক বসিয়ে সকলেই ফাদারের পক্ষ নিয়ে বিষয়টি ধামা চাপা দিয়ে দেন।

এবিষয়ে সালিশ বৈঠনে থাকা তানোর উপজেলা আদিবাসি পারগানা পরিষদের সভাপতি ও মুন্ডমালা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামিল মার্ডী বলেন, কিশোরীর ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে বিষয়টি আপোষ করে দেয়া হয়েছিলো। কিন্তু গ্রামবাসী কিশোরীর ভবিষতের কথা চিন্তা না করেই বিষয়টি প্রকাশ করে দিয়েছে এখন যা হওয়ার আইনের মাধ্যমেই হবে।

এবিষয়ে অভিযুক্ত ফাদার প্রদিপ গে গরীর সাথে যোগাযোগরে জন্য তার মোবাইলে একাধিকবার ফোন দেয়া হলে তিনি রিসিভ না করায় বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত (ওসি) রাকিবুল হাসান বলেন, খবর পেয়ে মঙ্গলবার সন্ধায় গীর্জা থেকে ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে থানায় নেয়া হয়েছে, কিশোরীর ভাই বাদি হয়ে ফাদারকে আসামী করে থানঅয় মামলা দায়ের করেছেন।

তিনি বলেন অভিযুক্ত ফাদারকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। কিশোরীকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য (আগামীকাল) আজ বুধবার রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে। #
সাইদ সাজু
০১৭১২-৬৭৮৬০১
০১৭১৩-২৬১৭৭১
তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধিঃ
তাং ২৯/০৯/২০২০ইং

 

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here