Home অর্থনীতি-ব্যবসা তানোরে আলু বীজের তীব্র সংকটে দিশে হারা চাষীরা

তানোরে আলু বীজের তীব্র সংকটে দিশে হারা চাষীরা

222
0

 তানোর প্রতিনিধি ঃ রাজশাহীর তানোরে টিএসপি সার ও আলু বীজের তীব্র সংকট দেখা দেয়ায় দিশে হারা হয়ে পড়েছেন আলু চাষী কৃষকরা। গত মৌসুমে ফলন ভালো হওয়ায় চাষীদের চাহিদার শীর্ষে রয়েছে ব্র্যাকের আলু বীজ। ফলে, চাষীদের মধ্যে টিএসপি সার ও ব্র্যাকের আলু বীজের জন্য হাহাকারের সৃষ্টি হয়েছে। বরাদ্ধ বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন আলু চাষীসহ সংশ্লিষ্ট ডিলাররা।

সার ও বীজের বরাদ্ধ না বাড়ালে টিএসপি সার ও আলু বীজের সংকটের কারনে এবছর আলু চাষের লক্ষমাত্র পুরন না হওয়ার অশংখ্যা করছেন কৃষকরা। তানোর উপজেলার একমাত্র ব্র্যাকের আলু বীজ ডিলারের ৫শ’৮০মেট্রিকটনের চাহিদা থাকলেও বরাদ্ধ পেয়েছেন মাত্র ১শ’২০মেট্রিকটন। কৃষকদের চাহিদার তুলনায় বরাদ্ধ কম পাওয়ায় ব্র্যাকের আলু বীজ সরবরাহ করতে না পারায় বিব্যতকর অবস্থায় পড়েছেন ডিলাররাও।

তানোর উপজেলার আলু চাষীরা বলছেন, অন্যবছর গুলোতে আলু’র দাম কম হওয়ায় নামে বে-নামে বিভিন্ন কোম্পানী বীজ তৈরি করে সরবরাহ করলেও এবছর আলু’র দাম বেশী হওয়ায় কোম্পানী গুলো আলু বীজ সরবরাহ করেননি। সেই সাথে আলুর দাম বেশী পেয়ে তাদের বীজের জন্য সংরক্ষনে রাখা বীজ আলুও বিক্রি করে দিয়েছেন। ফলে, এবছর আলু বীজের চরম সংকট দেখা দিয়েছে।

তানোর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার হাট-বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বীজ ডিলারের দোকানে দোকানে আলু চাষীরা আলু বীজের জন্য হন্যহয়ে খোঁজ করছেন আর ডিলাররা বীজ নাই বলে জানিয়ে দিচ্ছেন। তারপরও চাষীরা দীর্ঘসময় ধরে দাড়িয়ে থাকছেন দোকানের সামনে।
অপর দিকে অপেক্ষায় থাকা চাষীরা দোকান থেকে সরছেন না ভীড় করে অপেক্ষা করছেন বীজের জন্য।

এব্যাপারে ব্র্যাকের আলু বীজের একমাত্র ডিলার শাহীন আলম বলেন, ব্র্যাকের আলু বীজের চাহিদা দেয়া হয়েছে ৫শ’ ৮০ মেট্রিকটন, কিন্তু বরাদ্ধ পেয়েছি মাত্র ১শ’২০মেট্রিকটন। এর মধ্যে মাত্র ৫০মেট্রিকটন পেয়েছি বাঁকি ৭০মেট্রিকটন কবে পাবো তাও জানিনা। তিনি বলেন, আলু বীজের বরাদ্ধ না বাড়ালে চাষিরা আলু চাষ করতে পারবেন না।

তানোর উপজেলা কৃষি অফিসার শামিমুল ইসলাম বলেন, আলু রোপনে এখানো কয়েক সপ্তাহ বাকি রয়েছে, কিন্তু কৃষকরা সার কিনে স্টোক করতে শুরু করেছেন। আলুর বরাদ্ধ সার আসলে কোন সংকট হবেনা। তিনি বলেন আলু বীজও সময়মত কৃষকরা পেয়ে যাবেন। এই মুহুর্তে টিএসপি সারের প্রয়োজন নেই তিনি কৃষকদের ধর্য্য ধারনের পরামর্শ দেন।

দাম বেশী পেয়ে বীজের আলুও বিক্রি করে দিয়েছেন চাষীরা
তানোরে আলু বীজের তীব্র সংকটে দিশে হারা চাষীরা
তানোর প্রতিনিধি ঃ রাজশাহীর তানোরে টিএসপি সার ও আলু বীজের তীব্র সংকট দেখা দেয়ায় দিশে হারা হয়ে পড়েছেন আলু চাষী কৃষকরা। গত মৌসুমে ফলন ভালো হওয়ায় চাষীদের চাহিদার শীর্ষে রয়েছে ব্র্যাকের আলু বীজ। ফলে, চাষীদের মধ্যে টিএসপি সার ও ব্র্যাকের আলু বীজের জন্য হাহাকারের সৃষ্টি হয়েছে। বরাদ্ধ বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন আলু চাষীসহ সংশ্লিষ্ট ডিলাররা।

সার ও বীজের বরাদ্ধ না বাড়ালে টিএসপি সার ও আলু বীজের সংকটের কারনে এবছর আলু চাষের লক্ষমাত্র পুরন না হওয়ার অশংখ্যা করছেন কৃষকরা। তানোর উপজেলার একমাত্র ব্র্যাকের আলু বীজ ডিলারের ৫শ’৮০মেট্রিকটনের চাহিদা থাকলেও বরাদ্ধ পেয়েছেন মাত্র ১শ’২০মেট্রিকটন। কৃষকদের চাহিদার তুলনায় বরাদ্ধ কম পাওয়ায় ব্র্যাকের আলু বীজ সরবরাহ করতে না পারায় বিব্যতকর অবস্থায় পড়েছেন ডিলাররাও।

তানোর উপজেলার আলু চাষীরা বলছেন, অন্যবছর গুলোতে আলু’র দাম কম হওয়ায় নামে বে-নামে বিভিন্ন কোম্পানী বীজ তৈরি করে সরবরাহ করলেও এবছর আলু’র দাম বেশী হওয়ায় কোম্পানী গুলো আলু বীজ সরবরাহ করেননি। সেই সাথে আলুর দাম বেশী পেয়ে তাদের বীজের জন্য সংরক্ষনে রাখা বীজ আলুও বিক্রি করে দিয়েছেন। ফলে, এবছর আলু বীজের চরম সংকট দেখা দিয়েছে।

তানোর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার হাট-বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বীজ ডিলারের দোকানে দোকানে আলু চাষীরা আলু বীজের জন্য হন্যহয়ে খোঁজ করছেন আর ডিলাররা বীজ নাই বলে জানিয়ে দিচ্ছেন। তারপরও চাষীরা দীর্ঘসময় ধরে দাড়িয়ে থাকছেন দোকানের সামনে।
অপর দিকে অপেক্ষায় থাকা চাষীরা দোকান থেকে সরছেন না ভীড় করে অপেক্ষা করছেন বীজের জন্য।

এব্যাপারে ব্র্যাকের আলু বীজের একমাত্র ডিলার শাহীন আলম বলেন, ব্র্যাকের আলু বীজের চাহিদা দেয়া হয়েছে ৫শ’ ৮০ মেট্রিকটন, কিন্তু বরাদ্ধ পেয়েছি মাত্র ১শ’২০মেট্রিকটন। এর মধ্যে মাত্র ৫০মেট্রিকটন পেয়েছি বাঁকি ৭০মেট্রিকটন কবে পাবো তাও জানিনা। তিনি বলেন, আলু বীজের বরাদ্ধ না বাড়ালে চাষিরা আলু চাষ করতে পারবেন না।

তানোর উপজেলা কৃষি অফিসার শামিমুল ইসলাম বলেন, আলু রোপনে এখানো কয়েক সপ্তাহ বাকি রয়েছে, কিন্তু কৃষকরা সার কিনে স্টোক করতে শুরু করেছেন। আলুর বরাদ্ধ সার আসলে কোন সংকট হবেনা। তিনি বলেন আলু বীজও সময়মত কৃষকরা পেয়ে যাবেন। এই মুহুর্তে টিএসপি সারের প্রয়োজন নেই তিনি কৃষকদের ধর্য্য ধারনের পরামর্শ দেন।

দাম বেশী পেয়ে বীজের আলুও বিক্রি করে দিয়েছেন চাষীরা
তানোরে আলু বীজের তীব্র সংকটে দিশে হারা চাষীরা
তানোর প্রতিনিধি ঃ রাজশাহীর তানোরে টিএসপি সার ও আলু বীজের তীব্র সংকট দেখা দেয়ায় দিশে হারা হয়ে পড়েছেন আলু চাষী কৃষকরা। গত মৌসুমে ফলন ভালো হওয়ায় চাষীদের চাহিদার শীর্ষে রয়েছে ব্র্যাকের আলু বীজ। ফলে, চাষীদের মধ্যে টিএসপি সার ও ব্র্যাকের আলু বীজের জন্য হাহাকারের সৃষ্টি হয়েছে। বরাদ্ধ বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন আলু চাষীসহ সংশ্লিষ্ট ডিলাররা।

সার ও বীজের বরাদ্ধ না বাড়ালে টিএসপি সার ও আলু বীজের সংকটের কারনে এবছর আলু চাষের লক্ষমাত্র পুরন না হওয়ার অশংখ্যা করছেন কৃষকরা। তানোর উপজেলার একমাত্র ব্র্যাকের আলু বীজ ডিলারের ৫শ’৮০মেট্রিকটনের চাহিদা থাকলেও বরাদ্ধ পেয়েছেন মাত্র ১শ’২০মেট্রিকটন। কৃষকদের চাহিদার তুলনায় বরাদ্ধ কম পাওয়ায় ব্র্যাকের আলু বীজ সরবরাহ করতে না পারায় বিব্যতকর অবস্থায় পড়েছেন ডিলাররাও।

তানোর উপজেলার আলু চাষীরা বলছেন, অন্যবছর গুলোতে আলু’র দাম কম হওয়ায় নামে বে-নামে বিভিন্ন কোম্পানী বীজ তৈরি করে সরবরাহ করলেও এবছর আলু’র দাম বেশী হওয়ায় কোম্পানী গুলো আলু বীজ সরবরাহ করেননি। সেই সাথে আলুর দাম বেশী পেয়ে তাদের বীজের জন্য সংরক্ষনে রাখা বীজ আলুও বিক্রি করে দিয়েছেন। ফলে, এবছর আলু বীজের চরম সংকট দেখা দিয়েছে।

তানোর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার হাট-বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বীজ ডিলারের দোকানে দোকানে আলু চাষীরা আলু বীজের জন্য হন্যহয়ে খোঁজ করছেন আর ডিলাররা বীজ নাই বলে জানিয়ে দিচ্ছেন। তারপরও চাষীরা দীর্ঘসময় ধরে দাড়িয়ে থাকছেন দোকানের সামনে।
অপর দিকে অপেক্ষায় থাকা চাষীরা দোকান থেকে সরছেন না ভীড় করে অপেক্ষা করছেন বীজের জন্য।

এব্যাপারে ব্র্যাকের আলু বীজের একমাত্র ডিলার শাহীন আলম বলেন, ব্র্যাকের আলু বীজের চাহিদা দেয়া হয়েছে ৫শ’ ৮০ মেট্রিকটন, কিন্তু বরাদ্ধ পেয়েছি মাত্র ১শ’২০মেট্রিকটন। এর মধ্যে মাত্র ৫০মেট্রিকটন পেয়েছি বাঁকি ৭০মেট্রিকটন কবে পাবো তাও জানিনা। তিনি বলেন, আলু বীজের বরাদ্ধ না বাড়ালে চাষিরা আলু চাষ করতে পারবেন না।

তানোর উপজেলা কৃষি অফিসার শামিমুল ইসলাম বলেন, আলু রোপনে এখানো কয়েক সপ্তাহ বাকি রয়েছে, কিন্তু কৃষকরা সার কিনে স্টোক করতে শুরু করেছেন। আলুর বরাদ্ধ সার আসলে কোন সংকট হবেনা। তিনি বলেন আলু বীজও সময়মত কৃষকরা পেয়ে যাবেন। এই মুহুর্তে টিএসপি সারের প্রয়োজন নেই তিনি কৃষকদের ধর্য্য ধারনের পরামর্শ দেন।