প্রচ্ছদ অন্যান্য পৃষ্ঠা ভোলাহাট প্রশাসনের উন্নয়নের বিরুদ্ধে একটি চক্রের অপপ্রচারে প্রতিবাদের ঝড়

ভোলাহাট প্রশাসনের উন্নয়নের বিরুদ্ধে একটি চক্রের অপপ্রচারে প্রতিবাদের ঝড়

378
0

বি.এম রুবেলআহমেদঃ  ভোলাহাট  উপজেলা প্রশাসনের উপজেলা নির্বাহী অফিসার মশিউর রহমান সরকারের নীতি বাস্তবায়নের জন্য নিরালস উন্নয়নমূল কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্থানীয় উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস-চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, রাজনীতি নেতাসহ উপজেলাবাসিকে সাথে নিয়ে মডেল ভোলাহাট গড়তে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রাস্তার পাশে সরকারি জায়গায় গড়ে উঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে ১৬০ জন গৃহহীনকে টাকা বাড়ী করে দিয়েছেন। রাস্তায় সুস্থিতে চলাল। আইন বিরোধী কার্যকলাপ বন্ধে বলিষ্ঠ ভূমিকায় উপজেলার সীমিত সংখ্যক একটি অসাধু চক্র উন্নয়নের কাজে বাধাগ্রস্ত করতে বিভিন্ন প্রকার অপপ্রচার চালাচ্ছে। এ চক্রের মূলহোতা বড়গাছীর আদমপুর গ্রামের মৃত আবুল মিয়ার ছেলে রবিউল আউয়াল। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে, তিনি আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। রাজনীতিতে সরকারে ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করতে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের সমালোচনা করলে দল থেকে কোন ঠাসা হয়ে পড়েন। এক সময় তিনি স্বেচ্ছায় রাজনীতি থেকে পদত্যাগ করেন। তিনি রাস্তার পাশে সরকারি জায়গায় অবৈধ ভাবে আর্থীক সুবিধা নিয়ে অবৈধ স্থাপনা গড়ে তুলতে সহায়তা করেন। সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করলে চক্রের হোতা রবিউল আওয়াল উচ্ছেদ হওয়া ব্যক্তিদের তোপের মুখে পড়েন। ফলে অবৈধ ভাবে হাতিয়ে নেয়া অর্থ বৈধ ভাবে পাকাপোক্ত করতে বিভিন্ন ভাবে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের অপপ্রচার চালায় উপজেলায় তার বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ নিন্দা ও ক্ষোভের ঝড় উঠেছে। তার অপপ্রচারে একটি ভিডিও মোসাররফ হোসেন নামের একটি ফেইসবুকে প্রকাশিত হলে ক্ষোভে ফেটে পড়েন উপজেলাবাসি। উপজেলাবাসি জানান, ভোলাহাট উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মশিউর রহমান জনস্বার্থে যে উন্নয়ন করেছেন তা ভোলাহাটবাসির ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লিখা থাকবে। এলাকাবাসী জানান, ইতিপূর্বে অনেক উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসেছেন কিন্তু এভাবে ব্যাপক জনস্বার্থে কাজ করেননি। তিনি ২৪ ঘন্টায় ২০ ঘন্টায় জনস্বার্থে কাজ করে যাচ্ছেন। ভিক্ষুক থেকে শুরু করে উচ্চ পর্যায়ের যে কেউ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মশিউর রহমানের সাথে দেখা করে প্রয়োজনীয় বৈধ সুবিধা নিয়ে থাকেন। অপর দিকে অবৈধ সুবিধা নিতে ক্ষমতাধর কোন ব্যক্তি সুবিধা নিতে পারেননি। ঘুষ দূর্নীতি অনিয়মকে তিনি কোন সময় প্রশ্রয় দেননা। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মশিউর রহমান ভোলাহাট উপজেলার উন্নয়নের রূপকার হিসেবে ভোলাহাটে অলিখিত খেতাবপ্রাপ্ত হয়েছেন। অবৈধ চক্রের মূলহোতা রবিউল আওয়ালের অপপ্রচারে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করে প্রকাশিত ভিডিওতে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান গরিবুল্লাহ দবির , অবৈধ চক্রের মূলহোতা রবিউল আওয়াল উপজেলা প্রশাসনের ব্যাপক উন্নয়নে তার ব্যক্তি স্বার্থের ব্যাঘাত ঘটায় যে অপপ্রচার চালাচ্ছেন তার প্রতিবাদ নিন্দা ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। একই বক্তব্য রাখেন উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহনাজ খাতুন।